ফরেক্স ব্রোকার নির্বাচন

ফরেক্স ব্রোকার নির্বাচন খুব কঠিন একটা কাজ। ভালোব্রোকার না হলে আপনার লাভ তো দূরের কথা, পুঁজি নিয়ে আসতে পারবেন কিনা সন্দেহ। কিছু স্ক্যাম ও আছে। না বুঝে একাউন্ট ওপেন করে ফেললে পরে পস্তাতে হবে।

স্ক্যাম ব্রোকার কি?

এরা আসলে ব্রোকার নয়। হায় হায় ফরেক্স কোম্পানী। নানা প্রলোভন দিয়ে একাউন্ট ওপেন করার পর টাকা নিয়ে সটকে পড়বে।

ভালো ব্রোকার নির্বাচনের উপায় কি?

একটা ভালো ব্রোকার নির্বাচনের জন্য আমি অনেক গুলা ব্রোকারে ডেমো একাউন্ট করেছি, কিছু ব্রোকারের বোনাস নিয়ে ট্রেড করে দেখেছি। কেউ কেউ মানি উইথড্রয়াল এর সময় ঝামেলা করে, কেউ ট্রেড করার সময় আপনি যে দাম দিয়েছেন, ইচ্ছে করে কিছু সময় পরে একজিকিউশন দেখিয়ে (স্লিপেজ) আপনার কোটেড প্রাইস থেকে বেশি প্রাইসে কেনা দেখিয়ে কিছু টাকা হাতিয়ে নেয়। আবার আপনি যে দাম দিয়েছেন সে দামে পাওয়া যাচ্ছে না দেখিয়ে আরেকটা দাম দেখায় এবং আপনাকে এই দামে নিতে রাজী আছেন কিনা এরকম একটা মেসেজ দেখায় (রিকোট)।এর মধ্যে কিছু পিপ এর পার্থক্য হয়ে যায়, আপনি ইয়েস বাটনে ক্লিক করার পর আপনার ট্রেড একজিকিউশনহবে ঠিকই, কিন্তু ততক্ষণে আপনি যে দামে কিনতে চেয়েছিলেন তার চেয়ে ১০ পিপ বেশিতে আপনাকে কিনতে হয়েছে, ফলাফল হল এর পরই দাম কমতে শুরু করেছে, কাজেই আপনার ট্রেড তখন ইন ভ্যালিড হয়ে গেলো এবং আপনি লস এ পড়ে গেলেন। কিছু ব্রোকার খুব বেশি লেভারেজ দেয় কিন্তু রিকোট দিয়ে আপনাকে লাভ করতে দেয় না। এরা ট্রেডের সময় ক্লায়েন্ট এর বিপক্ষে অবস্থান নিয়ে ক্লায়েন্টকে খুব কম সময়েই লাভ করতে দেয়। এসব ব্রোকারকে মার্কেট মেকার ( Dealing desk ) ব্রোকার বলে। এসব ব্রোকার ট্রেড একজিকিউশন এর আগে আপনার ট্রেড একটা ডিলিং ডেস্ক এর মাধ্যমে যায় এবং তারা প্রাইস ম্যানিপুলেট করার সুযোগ পায়। প্রাইস ম্যানিপুলেট করার জন্য তারা যে সব পদ্ধতি অবলম্বন করে তা হল- স্লিপেজ,রিকোট এবং স্টপ হান্টিং ( আপনার স্টপ লস খুঁজে বের করে সেটাকে রিকোটের মাধ্যমে অন্যের কাছে ট্রেড করে দেওয়া)।

কিছু ব্রোকার আছে যাদের কোন ডিলিং ডেস্ক নেই, (NO Dealing) আপনার ট্রেড সরাসরি ট্রেড টার্মিনালে চলে যায় । এ ধরণের ব্রোকারকে STP ( Straight Through Processing) ব্রোকার বলে। ট্রেড টার্মিনালে প্রথমে ব্রোকারের নিজস্ব ইনভেস্টরের কাছে আপনার কোটেড প্রাইস থাকলে সাথে সাথে একজিকিউট হয়ে যায়,আর না থাকলে অন্য ইনভেস্টর এর কাছে কোট করে। এটা ইলেকট্রনিক পদ্ধতিতে ১ সেকেন্ডের ও কম সময়ের মধ্যেই সম্পন্ন হয়ে যায়। আবার কিছু ব্রোকার আছে যারা আপনার ট্রেড বিশেষ ইলেকট্রনিক কমিউনিকেশন নেটওয়ার্কের মাধ্যমে সরাসরি ইন্টার ব্যাংক মার্কেট পার্টিসিপেন্ট এর কাছে পাঠিয়ে দেয়। এ ধরণের ব্রোকারকে ECN ( Electronic Communication Network) ব্রোকার বলে। মার্কেট মেকার ব্রোকার বা এসটিপি ব্রোকার বাই ও সেল স্পেড এর মাধ্যমে আয় করে থাকে। ইসিএন ব্রোকার এর ক্ষেত্রে স্প্রেড এর বাইরে প্রতি ট্রেডে অতিরিক্ত কমিশন দিতে হয়। কারণ ইন্টারব্যাংক স্প্রেড অনেক কম হয়ে থাকে। কিছু ব্রোকারের পারফরম্যান্স খুব ভালো কিন্তু রেগুলেটেড না,যার ফলে ঐ সব ব্রোকারে টাকার কোন সেফটি নেই।
একটা ভালো ব্রোকার নির্বাচনের জন্য নিচের বিষয়গুলো অবশ্যই যাচাই করে নিতে হবেঃ

কিছু ব্রোকার আছে তাদের কে তারা STP ব্রোকার বলে দাবি করে কিন্তু তারা মার্কেট মেকার ও প্রোভাইড করে তাদের লাইভ চ্যাট এ প্রশ্ন করলে বলে উই ডু বোথ তার মানে হল তারা শিউর মার্কেট মেকার ব্রোকার কারন STP ব্রোকার এর রেগুলেশন এই থাকে যে তারা মার্কেট মেকার প্রোভাইড করতে পারবে না তাহলে তাদের রেগুলেশন চলে যাবে এবং সলিড STP/DMA ব্রোকার কখন মার্কেট মেকার ওফার ও করবে না,

১। প্রথমতঃ ব্রোকার এর কোন স্থায়ী ঠিকানা ( Physical Address) আছে কিনা। যদি না থাকে তাহলে বুঝতে হবে এটা ধান্দাবাজ ব্রোকার। এ ধরণের ব্রোকার এর শুধু ইমেইল এড্রেস এবং টেলিফোন নং থাকে, কিন্তু টেলিফোন নম্বরগুলো সবগুলোই ইন্টারনেট বেজড। যদি থাকে তাহলে নিশ্চিত হয়ে নিন স্থায়ী ঠিকানা কোন অপরিচিত বা সন্দেহজনক জায়গার কিনা, যদি সেরকম হয় তাহলে ঐ ব্রোকারে একাউন্ট না করাই ভালো ( যেমন- ব্রিটিশ ভার্জিন আইল্যান্ড)
২। ব্রোকার রেগুলেটেড কিনা। বিভিন্ন দেশে ফরেক্স মার্কেট বা ফিন্যান্সিয়াল মার্কেট রেগুলেট করার জন্য বিভিন্ন রেগুলেটরি বডি আছে।
একজন অভিজ্ঞ ট্রেডার ব্রোকার সিলেক্টের আগে ব্রোকারটির রেগুলেশন দেখেন, যেমন যুক্তরাষ্ট্রে CFTC( Commodity Futures Trading Commission), NFA( national Futures Association), ইউরোপে CESR(The Committee of European Securities Regulators), যুক্টরাজ্যে FSA(Financial Services Authority). ব্রোকার রেগুলেটেড না হলে আপনার জমা দেওয়া টাকার যেমন নিশ্চয়তা নেই,তেমনি তারা কোন অনিয়ম করে থাকলে তা জানানোর ও কোন যায়গা আপনার নেই।
একজন অভিজ্ঞ ট্রেডার ব্রোকার সিলেক্টের আগে ব্রোকারটির রেগুলেশন দেখেন,
যুক্তরাষ্ট্র- ( Fca – FINANCIAL SERVICES REGISTER)
ব্রোকার Fca রেগুলেটেড কিনা দেখেন।
একটি কথা মনে রাখতে হবে মার্কেট মেকাড় বড়কাড় যতো হাই রেগুলেশন দেখাক না কেনো বা আপনার ভালো মনে হোক না কেনো এই সব ব্রোকারে আপনার ফান্ড রিস্কে থাকে, কাওরন তাদের রিয়াল কোনো লিকুডিইটি প্রভাইডর নাই।

ব্রোকার রেগুলেটেড না হলে আপনার জমা দেওয়া টাকার যেমন নিশ্চয়তা নেই,তেমনি তারা কোন অনিয়ম করে থাকলে তা জানানোর ও কোন যায়গা আপনার নেই।
৩। ডিপোজিট এবং উইথড্রয়াল পদ্ধতি কি রকম? কিছু ব্রোকার আছে খুব ভালো কিন্তু ব্যাংক ছাড়া অন্য মাধ্যমে টাকা জমা নেয়না। ডিপোজিটে সমস্যা না হলেও কোন কোন ব্রোকার টাকা উঠানোর সময় ইচ্ছাকৃতভাবে দেরি করে, কিছু ফালতু ফরম পূরণ করতে হয়, টাকা উঠানোর আদেশ দিলে ১৫ থেকে ৩০ দিন পরে টাকা দেয়।
৪। কি ধরণের ব্রোকার? মার্কেট মেকার না এসটিপি না ইসিএন? আমি মার্কেট মেকার বা ইসিএন ব্রোকার রিকমেন্ড করছি না। এসটিপি ব্রোকার সিলেক্ট করাই ভালো। ইসিএন+এসটিপি ব্রোকার হলে যদি স্প্রেড এর বাইরে অতিরিক্ত কমিশন না নেয় তাহলে ইসিএন+এসটিপি ব্রোকার সিলেক্ট করা যেতে পারে।
৫। স্প্রেড বা কমিশন কত? কিছু ব্রোকার আছে যারা ০.৩ থেকে স্প্রেড দেয়, কিন্তু বাস্তবে দেখা গেছে এই রেটে কখনো ট্রেড করা যায় না। কেনার সময় ০.৬ থেকে ১ পিপ স্প্রেড দেখালেও আসলে রিকোট বা স্লিপেজ এর মাধ্যমে ৩ পিপ বা তারো বেশি নিয়ে থাকে। ইসিএন ব্রোকার এর ক্ষেত্রে সাধারণ স্প্রেড এর বাইরেও অতিরিক্ত কমিশন দিতে হয়। যেমন কোন ব্রোকার এর স্প্রেড ১ হলে আর কমিশন প্রতি ট্রেডে ০.৫ পিপ হলে বাই এবং সেল দুই বারে ১ পিপ,মোট ২ পিপ। এসটিপি ব্রোকার সাধারণতঃ ২ থেকে ৩ পিপ নিয়ে থাকে এবং এদের একজিকিউশন হয় খুব কম সময়ে।
৬।লেভারেজ কত? যদিও এটা কোন বড় ফ্যাক্টর নয়, তবুও খুব কম লেভারেজ নিয়ে মিনি একাউন্টে ট্রেড করা খুব কঠিন। ১০০ থেকে ২০০ লেভারেজ থাকাই যথেষ্ঠ।
৭। যদি কোন কারণে আপনি লসের সম্মুখীন হন, তাহলে আপনার লস রিকভার করার কোন অপশন ঐ ব্রোকারে আছে কিনা? অর্থাৎ এক্সপার্ট দের ট্রেড কপি করার সুযোগ আছে কিনা। এ সুবিধা থাকলে আপনার মূলধণের কিছু অংশ কপি ট্রেড এ ব্যবহার করতে পারেন। এতে কোন বাড়তি খরচ নেই। এক্সপার্টরা ব্রোকার কমিশন এর একটা ক্ষুদ্র অংশ পায়।
এই বিষয়গুলো যথাযথভাবে অনুসরণ করতে না পারলে আপনাকে পদে পদে হয়রানির শিকার হতে হবে।

হোম
নিউজ
ট্রেডিং স্কুল
ব্রোকার
সিগন্যাল
ক্লাব
Scroll to Top