NFP রিপোর্টের পূর্বে দিনের সর্বোচ্চ প্রাইসে EURUSD

EURUSD ২ সপ্তাহের মধ্যে সর্বোচ্চ বেড়ে ১.০৭৫০ প্রাইসে মুভমেন্ট করছে। মার্কিন জব রিপোর্টের পূর্বে ডলারের বিপরীতে ইউরোর প্রাইস বৃদ্ধি পাচ্ছে। সম্প্রতি ফেডারেল রিজার্ভের নীতিনির্ধাকদের থেকে হকিশ মন্তব্য আসার পরও ডলারের প্রাইস কমছে।

আজকের সেশনে মূল ইভেন্ট হিসেবে মার্কিন ননফার্ম পেরোল রিপোর্টকে ধরা হচ্ছে। প্রত্যাশা করা হচ্ছে, আজ প্রকাশিত ননফার্ম পেরোলস ৩ লক্ষ ২৫ হাজার আসতে পারে। যদিও গত মাসে ৪ লক্ষ ২৮ হাজার এসেছিল।

প্রত্যাশার থেকে পেরোলস রিপোর্ট কমলে EURUSD পেয়ারের প্রাইস আরও বৃদ্ধি পেতে পারে।এছাড়াও পেরোলস রিপোর্টের দুর্বল প্রত্যাশা ইতিমধ্যে ডলারের বিপরীতে ইউরোকে শক্তিশালী করছে।

এদিকে S&P 500 ফিচার ৪,১৭৫-এর কাছাকাছি লড়াই করছে এবং US Treasury yields কমে ২.৯২%-এর কাছাকাছি মুভমেন্ট করছে।

যা মার্কেটে সতর্কতার সাথে আশাকে জাগিয়ে রাখছে। তবে ওয়াল স্ট্রিট বেঞ্জমার্ক এক সপ্তাহে সবচেয়ে বেশি বেড়েছে।

এদিকে মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র ও চীনের মধ্যকার কৌশল মার্কেটে প্রভাব ফেলতে পারে। যুক্তরাষ্ট্র চীনের সাথে শুল্ক কাঠামো নিয়ে একটি কৌশলগত পুনর্বিন্যাস চাইছে। চীনের পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের মুখপাত্র ঝাও যুক্তরাষ্ট্র থেকে আমদানি নিষিদ্ধ করার আইনের প্রতি অপছন্দের কথা জানিয়েছে।

তবে দুই দেশের মধ্যে বিষয়টির সমঝোতা হলে ডলারের প্রাইস বৃদ্ধি পেতে পারে। মার্কিন ননফার্ম পেরোলস রিপোর্ট ছাড়াও সার্ভিস পিএমআইসহ ডলারকে প্রভাবিত করার মতো বেশ কয়েকটি ইভেন্ট রয়েছে।

ইউরোজোন রিটেইল সেলস ইউরোকে প্রভাবিত করতে পারে। প্রত্যাশা করা হচ্ছে, এপ্রিলে ইউরোজোন রিটেইল সেলস -০.৪% থেকে বেড়ে ০.৩% আসতে পারে এবং বাৎসরিক ব্যবধানে ০.৮% থেকে বেড়ে ৫.৪% আসার সম্ভাবনা রয়েছে। যা ডলারের বিপরীতে ইউরোকে শক্তিশালী করবে।

Leave a Comment

Your email address will not be published.

হোম
নিউজ
ট্রেডিং স্কুল
ব্রোকার
সিগন্যাল
ক্লাব
Scroll to Top