Bitcoin ও Ethereum টেকনিক্যাল অ্যানালাইসিস

ক্রিপ্টোকারেন্সি মার্কেটে বিয়ারিশ সেন্টিমেন্ট থাকার কারণে সোমবার বিটকয়েন জুন মাসের পরবর্তীতে সর্বনিন্মে নেমে এসেছে। গত সপ্তাহে মার্কিন মুদ্রাস্ফীতি প্রতিবেদনের পর কয়েনটি নিন্মমুখী অবস্থানে রয়েছে। যদিও সাময়িক সময়ের জন্য কয়েনের প্রাইস বেড়েছিলো।

তবে সর্বোপরি ডাউনট্রেন্ড অব্যাহত রেখেছে। আসন্ন মার্কিন ফেডারেল ওপেন মার্কেট কমিটির বৈঠকের পূর্বে কয়েনের ডাউনট্রেন্ড অব্যাহত থাকার সম্ভাবনা রয়েছে। এদিকে ইথেরিয়ামও বেশ কয়েক মাসের সর্বনিন্ম প্রাইসে নেমে এসেছে।

Bitcoin

ক্রিপ্টো মার্কেটে বিয়ারিশ সেন্টিমেন্ট সর্বোচ্চে থাকার কারণে বিটকয়েন চার মাসের নিন্মে নেমে এসেছে। সোমবার কয়েনটি ১৮,৬৪৫ ব্রেকআউট করে দিনের সর্বনিন্মে ১৮,৩৯০ ডলারে নেমে এসেছে। সোমবার কয়েনটি ১৮ জুনের পরবর্তীতে সর্বনিন্ম প্রাইসে হিট করেছে।

অনেকেই প্রত্যাশা করছে, এ সপ্তাহে মার্কিন ফেডারেল ওপেন মার্কেট কমিটি মিটিংকে কেন্দ্র করে বিটকয়েনে বড় ধরনের ডাম্পের সম্ভাবনা রয়েছে। যেহেতু ফেডারেল রিজার্ভ ইন্টারেস্ট রেট বৃদ্ধির সম্ভাবনা ব্যাপক।

ডেইলি চার্টে ১৪ দিনের RSI ইনডিকেটর অনুযায়ী, কয়েনটি ৪১.৩০ পয়েন্টের কাছাকাছি অবস্থান করছে। যা প্রাইস কমার  সম্ভাবনাকে বৃদ্ধি করছে। এছাড়াও বিটকয়েন ১৭,৬০০ সাপোর্ট অতিক্রমে সক্ষম হলে সেক্ষেত্রে ডাউনট্রেন্ড শক্তিশালী হওয়ার সম্ভাবনা রয়েছে।

Ethereum

গত সপ্তাহটি ইথেরিয়ামের একটি ঐতিহাসিক সপ্তাহ ছিলো কারণ সপ্তাহটিতে ইথেরিয়াম মার্জ অনুষ্ঠিত হয়েছিলো। মার্জ ইভেন্ট কেন্দ্র করে কয়েকদিন আগে ইথেরিয়ামের প্রাইস বৃদ্ধি পেলেও পরবর্তীতে কমতে শুরু করেছে।

তবে ইথেরিয়াম মার্জের পরবর্তীতে উল্লেখযোগ্যভাবে টোকেনের প্রাইস হ্রাস পেয়ে ১,২৮৭-তে নেমে এসেছে। বিশ্বের দ্বিতীয় বৃহত্তম ক্রিপ্টোকারেন্সি এক সপ্তাহের ব্যবধানে ১,৭০০ প্রাইস থেকে কমতে শুরু করেছিলো।

জুন মাসের ১৬ তারিখে বিটকয়েনের প্রাইস কমে ১ হাজারের নিচে আসলেও বিটকয়েনের তুলনায় ইথেরিয়াম বেশ ভালো রিকভারে সক্ষম হয়েছিলো।

কেউ কেউ বিশ্বাস করেন ইথেরিয়ামের প্রাইস কমে ১ হাজার ডলারের নিচে নেমে আসতে পারে। এক্ষেত্রে ইথেরিয়ামে আরও বড় ধরনের পতন দেখা যেতে পারে।

Leave a Comment

Your email address will not be published.

হোম
নিউজ
ট্রেডিং স্কুল
ব্রোকার
সিগন্যাল
ক্লাব
Scroll to Top