জার্মান অ্যানার্জি ক্রাইসিসে ০.৮৪২০ প্রাইসে EURGBP

চলতি সপ্তাহের প্রথম দুদিন EURGBP পেয়ারের প্রাইস কমলেও আজকের সেশনে বৃদ্ধির চেষ্টা করছে। আজ বুধবার টোকিও সেশনে পেয়ারটি ০.৮৪১২-এর কাছাকাছি মুভমেন্ট করছে।

ইউরোজোনের প্রধান ইকোনমিক শক্তিশালী দেশ জার্মান অ্যানার্জি সংকটে থাকলেও ব্রিটিশ পাউন্ডের বিপরীতে ইউরো প্রাইস বৃদ্ধির চেষ্টা করছে। বিনিয়োগকারীদের ইউরো ট্রেডিংয়ের ক্ষেত্রে সচেতন হওয়ার প্রয়োজন। রাশিয়া আগস্টের শেষ তিন দিনের জন্য ইউরোপে প্রাকৃতিক গ্যাস সরবরাহ বন্ধ করে দেবে যা বাল্টিক সাগরের নীচে নর্ড স্ট্রীম ১ পাইপলাইন মেরামতের জন্য।

কিছু অ্যানালাইসিস্টরা ধারণা করছে, নর্ড স্ট্রীম ১ পাইপলাইন থেকে গ্যাস সরবরাহ ৩ দিনের বেশি স্থায়ী হতে পারে। এর ফলে ইউরোর প্রাইস কমার সম্ভাবনা রয়েছে। জার্মানিতে আগত শীত মৌসুমে অ্যানার্জি চাহিদা বৃদ্ধি পেতে পারে। রাশিয়ার এ ধরনের উদ্বেগ স্থায়ী হলে সেক্ষেত্রে ব্যাপক অ্যানার্জি ক্রাইসিস হওয়ার সম্ভাবনা রয়েছে।

যা ইউরোকে ডলারের বিপরীতে আরও দুর্বল করতে পারে। জার্মান ম্যানুফেকচারিং পারচেজিং ম্যানেজার ইনডেক্স (PMI) প্রত্যাশার থেকে বেড়ে ৪৯.৮ পয়েন্ট এসেছে। এছাড়াও দেশটির সার্ভিস পিএমআই ৪৮.২ থেকে বেড়ে ৪৯.৯ পয়েন্ট এসেছে।

অপরদিকে ক্রমবর্ধমান মুদ্রাস্ফীতি পাউন্ডের প্রাইসে নেতিবাচক প্রভাব ফেলছে। মুদ্রাস্ফীতি বৃদ্ধি পেয়ে চার দশকের সর্বোচ্চ ১০.১%-তে অবস্থান করছে। স্থানীয় ব্রিটিশ সিটি ব্যাংকের অ্যানালাইসিস্টদের মতে, ২০২৩ সালের প্রথম দিকে মুদ্রাস্ফীতি বৃদ্ধি পেয়ে ১৮% হতে পারে। দেশটির মুদ্রাস্ফীতি ব্রিটিশ ইকোনমিতে নেতিবাচক প্রভাব ফেলতে পারে।

Leave a Comment

Your email address will not be published.

হোম
নিউজ
ট্রেডিং স্কুল
ব্রোকার
সিগন্যাল
ক্লাব
Scroll to Top